স্বপ্নদ্রষ্টা ইলন মাস্ক!!


অসাধারণ উদ্ভাবনী বৈজ্ঞানিক চিন্তাধারা মাধ্যমে নতুনভাবে যিনি চিন্তা করতে ও স্বপ্ন দেখতে শিখিয়েছেন নাম তাঁর- ইলন মাস্ক।
প্রায় ২১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সম্পত্তির মালিক ইলন মাস্ককে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে সফল উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচয় দেয়া হয়। কিন্তু ক্ষুদ্র কম্পিউটার প্রোগ্রামিং থেকে শুরু করে মঙ্গলের লাল মাটিতে প্রাণের বিকাশে পদচারণ- এত লম্বা যাত্রাপথটা কিন্তু মোটেও সুগম ছিলো না। পার হতে হয়েছে অনেক চড়াই উৎরাই, সামলাতে হয়েছে অনেক ব্যার্থতা।
দক্ষিন আফ্রিকান বাবা ও কানাডিয়ান মা এর সন্তান ইলনের পুরো নাম “ইলন রিভ মাস্ক,” জন্ম ১৯৭১ সালে, দক্ষিন আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায়। ছোটবেলা থেকেই বইয়ের প্রতি খুব ঝোঁক ছিল ইলনের। মাত্র নয় বছর বয়সে ঘরে বইয়ের অভাবে তিনি শেষমেষ পড়া শুরু করেন বিখ্যাত এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা, যা তিনি একসময় পড়া শেষও করে ফেলেন!
মাত্র ১০ বছর বয়সেই সে নিজ থেকেই কম্পিউটার প্রোগ্রামিং এ পারদর্শিতা লাভ করেন। ১২ বছর বয়সেই তিনি ব্লাস্টার নামক একটি মজাদার ভিডিও গেম তৈরি করে ফেলেন। নিজ উদ্যোগে সেই ভিডিও গেমটি তিনি একটি ম্যাগাজিনের কাছে বিক্রি করে নগদ ৫০০ মার্কিন ডলার আয় করেন!
যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অফ পেনিসিলভেনিয়া থেকে তিনি অর্থনীতিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে তিনি পদার্থবিজ্ঞানের উপর দ্বিতীয় স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেনএকসময় অর্থনীতির শিক্ষার্থী হওয়ার পরও পরবর্তীতে তিনি কিন্তু বৈজ্ঞানিক কর্মক্ষেত্রেই সফল হতে পেরেছেন।এনার্জি ফিজিক্সের উপর পিএইচডি করার উদ্দ্যেশে মাস্ক স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পরপরই তিনি ঠিক করেন যে, পিএইচডি বাদ দিয়ে তিনি ব্যবসায়িক উদ্যোক্তা হওয়ার দিকে মনোনিবেশ করবেন এবং ঠিক ২দিন পর তিনি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ড্রপ আউট হন।

সময়টা ছিল ইন্টারনেটের শুরুর দিকে,ইন্টারনেটের অপার সম্ভাবনাই মূলত ইলন মাস্ককে জিপ টু তৈরিতে অনুপ্রেরণা দেয়, এমন একটি সফটওয়্যার যা শহরের খবরের কাগজের জন্য ইন্টারনেট গাইড হিসেবে ব্যবহার করা হতো। জিপ টু এর সিইও পদের জন্য মাস্ক আগ্রহী হলে তাঁর নিজের কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদই তাঁকে বাঁধা দেয়। ইতিমধ্যে বিখ্যাত টেক কোম্পানি কমপ্যাক জিপ টু কে অধিগ্রহণ করলে মাস্ক পকেটে পুরে নেন ২২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

জিপ টু এর পাট চুকিয়ে মাস্ক নিয়ে আসলেন এক্স ডট কম নিয়ে। আমাদের দেশে বিকাশ-ইউক্যাশের মাধ্যমে টাকা আদান-প্রদানের ধারণাটাই মাস্ক এক্স ডট কমের মাধ্যমে দিয়েছিলেন, যা পরবর্তীতে রূপ নেয় বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় অনলাইন মানি ট্রান্সেকশনের মাধ্যম পেপ্যাল এ। ২০০২ সালে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইবে পেপ্যালকে ১.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে কিনে নেয় যা তখনকার সময়ে সবচেয়ে বড় ব্যবসায়িক অধিগ্রহণ ছিল। পেপ্যালের ১১.৭ শতাংশ শেয়ার ইলন মাস্কের ব্যাংক একাউন্টে জমা করে প্রায় ১৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
জিপ টু ও এক্সডটকম-পেপ্যাল এর পর মাস্ক কিন্তু চাইলেই মিলিয়নিয়ারের খেতাব নিয়ে অনায়েসেই বিলাসী এক জীবন কাটাতে পারতেন। কিন্তু মাস্কের স্বপ্নটা ছিল, আরও অনেক সুদূরপ্রসারী।
ইলন মাস্কের ইচ্ছা ছিল, আন্তঃমহাদেশীয় রকেট দিয়ে তিনি ব্যাক্তিগত উদ্দ্যোগে পৃথিবী থেকে মহাকাশে পন্য সরবরাহ করবেন। যেই ভাবা সেই কাজ, রকেট কেনার উদ্দ্যেশে মাস্ক উড়াল দিলেন রাশিয়ায়। কিন্তু রাশিয়ায় গিয়ে দেখেন যে এক একটি আইসিবিএম (আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র) এর দাম প্রায় ৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং যা একবারই ব্যবহারযোগ্য। এরকম অবিশ্বাস্য দাম শুনে ইলন মাস্ক হতাশ হয়ে পড়েন। দেশের পথে ফিরে আসার পথিমধ্যেই মাস্ক ঠিক করেন যে তিনি নিজেই স্বল্পমূল্যে এমন সব রকেট বানাবেন যা পৃথিবীর অরবিটের ছাড়িয়ে পাড়ি দিতে সক্ষম এবং একইসাথে যা পুনর্ব্যবহারযোগ্য।

২০০২ সালের ৬ই মে ইলন মাস্ক প্রতিষ্ঠা করেন বর্তমান বিশ্বের সর্ববৃহৎ ব্যক্তিমালিকানাধীন মহাকাশ সংস্থা স্পেসএক্স (স্পেস এক্সপ্লোরেশন টেকনোলোজিস কর্পোরেশন)।
পরপর তিনটি ব্যর্থ রকেট উৎক্ষেপণের পরও ইলন মাস্ক হাল ছাড়েননি। শত বাঁধা পেরিয়ে স্পেসএক্স এর ফ্যালকন-১ এর সফল উৎক্ষেপণ হলো। এরপর ইলন মাস্ক অদূর ভবিষ্যতেই মঙ্গল গ্রহে মানব বসতি স্থাপনের উদ্যোগ নিলেন। মাস্ক মনে করতেন, পৃথিবী থেকে ৫৪.৬ মিলিয়ন কিলোমিটার পথ পারি দেয়ার খরচ যোগানের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হলো রকেট পুনর্ব্যবহারযোগ্য করে তোলা। স্পেসএক্স তৈরি করলো ফ্যালকন-৯, ফ্যালকন হেভি, প্রস্তাব দিলো বিএফআর এর মত অত্যাধুনিক স্পেসক্রাফটের। মাস্ক ২০২০-২০২৪ সালের মধ্যে মঙ্গল অভিযানকে বাস্তবে রূপ দিতে চান। মাস্ক মঙ্গল নিয়ে এতটাই আশাবাদী যে তিনি পৃথিবীতে নয়, বরং মঙ্গল গ্রহে মৃত্যুবরণ করারও ইচ্ছা ব্যাক্ত করেন!

সৌর ও বৈদ্যুতিক জ্বালানি শক্তিচালিত মোটরগাড়ির অনন্য এক প্রতিষ্ঠান টেসলা ইনকর্পোরেটেড প্রতিষ্ঠা করেন তিনি। ইলন মাস্ক নিশ্চিত করেন যে, ক্যালিফোর্নিয়ার টেসলার ফ্যাক্টরি থেকে বের হওয়া প্রতিটি গাড়ি যেন ১০০% পরিবেশবান্ধব ও জ্বালানি সাশ্রয়ী হয়।

ইলন মাস্ক পৃথিবীতে যেসব পরিবর্তনের ছাপ রেখে যাচ্ছেন, তা সত্যিই সাধারণ সাফল্যের পাল্লায় পরিমাপ করা সম্ভব নয়।

তথ্যসূত্র:

https://www.biography.com/people/elon-musk-20837159

https://www.bbc.com/ne…/…/business-45645422/who-is-elon-musk

0