spot_imgspot_img

বিনামূল্যে অক্সিজেন সরবরাহ করছে আবুল খায়ের গ্রুপ

গত সপ্তাহে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৮০ টি বড় সিলিন্ডার দিয়েছে আবুল খায়ের গ্রুপ। এর মাধ্যমে তারা পশ্চিমের জেলাগুলিতে অক্সিজেন সরবরাহের সম্প্রসারণ করছে।

আবদুল খায়ের গ্রুপ অক্সিজেন উৎপাদন করে মূলত রড তৈরিতে ব্যবহার করার জন্য। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডতে ইস্পাত কারখানার পাশে তাদের এ অক্সিজেন প্ল্যান্টটি রয়েছে। এটি প্রায় ২৬০ টন অক্সিজেন উৎপাদন করতে সক্ষম।

গত বছর করোনা সংক্রমণ শুরুর পরে মে মাস থেকে স্বাস্থ্যখাতে তরল অক্সিজেন সরবরাহ শুরু করে তারা। এজন্য তারা মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেন উৎপাদন শুরু করে। মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেনে উচ্চমাত্রায় বিশুদ্ধতা প্রয়োজন। তাহলেই এটি মানবদেহের সাথে সামঞ্জস্যপুর্ণ হয়।

এরপর তারা চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, ফেনী, কুমিল্লা এবং সিলেটের হাসপাতাল ও রোগীদের অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান করেন। এখন তারা রাজশাহী, নাটোর এবং নড়াইলের সিভিল সার্জনদের প্রয়োজনীয় অক্সিজেন পূরণে কাজ করছেন।

তাদের কার্যপ্রণালী ভিন্ন সময়ে ভিন্ন হয়। মাঝে মাঝে তারা অক্সিজেন সিলিন্ডারে অক্সিজেন ভরে পাঠান। আবার কখনো হাসপাতাল থেকে বা অন্য লোকেরা তাদের কাছে খালি সিলিন্ডার রিফিলের জন্যে নিয়ে আসেন।

আবুল খায়ের গ্রুপের কর্মকর্তারা জানান, দেশের যেকোনো জায়গায় যেকোনো মানুষকে তারা এ অক্সিজেন বিনামূল্যে সরবরাহ করে থাকেন।

প্ল্যান্টের সিনিয়র ম্যানেজার ইমরুল কাদের ভূঁইয়া জানান, আমরা গত বছরের জুন থেকে এখন পর্যন্ত ১০ হাজারের বেশি সিলিন্ডার সরবরাহ করেছি এবং প্রতিদিন চারশর বেশি সিলিন্ডার রিফিল করছি। তবে কভিট পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় বর্তমানে আমরা প্রতিদিন ৫৫০টির মত সিলিন্ডার রিফিল করছি।

এছাড়া তাদের অক্সিজেন প্ল্যান্ট সম্পর্কে তিনি জানান, তাদের ২৬০ টন উৎপাদনক্ষমতাসম্পন্ন এ অক্সিজেন প্ল্যান্টে আগে ১০ টন তরল অক্সিজেন উৎপাদিত হত। গত বছরে তা বেড়ে ২০ টনে দাঁড়ায়। বর্তমানে নতুন করে করোনা সংক্রমণ বাড়ায় দিনে ৩০ টন তরল অক্সিজেন উৎপাদিত হচ্ছে।

তিনি আরো জানান, শিল্প গ্রেড অক্সিজেন উৎপাদন হ্রাস করে ধীরে ধীরে মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেন উৎপাদন আরো বৃদ্ধি করবেন। তাই মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়ানোর জন্য ইতিমধ্যে বেশ কিছু সরঞ্জাম কেনা হয়েছে। এই মাসেই তা দেশে এসে পৌঁছাবে।

বর্তমানে তারা লিন্ড বাংলাদেশ এবং স্পেকট্রা অক্সিজেনের কাছে অক্সিজেন বিক্রি করেন। তাদেরকে প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০ টন অক্সিজেন সরবরাহ করে থাকেন।

তবে ইমরুল কাদের ভূঁইয়া জানান, দেশের যে কোনও বেসরকারী বা সরকারী হাসপাতালের অক্সিজেনের প্রয়োজন হলে তারা তা  আনন্দের সাথে সরবরাহ করবেন।

ছবি ও তথ্যসূত্র- দ্য ডেইলি স্টার 

Get in Touch

spot_imgspot_img

Related Articles

spot_img

Get in Touch

0FansLike
2,959FollowersFollow
0SubscribersSubscribe

Latest Posts